এসএসসি পরীক্ষা: দেরি হলেও কেন্দ্রে ঢোকা যাবে তবে…

এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট আগে পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা কেন্দ্রে ঢোকার নিয়ম মানার ক্ষেত্রে কঠোর থাকলেও যুক্তিযুক্ত কারণে কারও দেরি হলেও তাদের ঢুকতে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। যারা দেরিতে আসবেন, তারা নাম, রোল ও বিলম্বের কারণ রেজিস্ট্রারে লিখে পরীক্ষা কেন্দ্রে ঢুকতে পারবেন।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ সোমবার এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার্থীদের কেন্দ্রে প্রবেশের সময় সংক্রান্ত এক পরিপত্রে এই তথ্য জানিয়েছে।

পরিপত্রে বলা হয়েছে, “পরীক্ষা শুরুর কমপক্ষে ৩০ মিনিট পূর্বে সকল পরীক্ষার্থীকে অবশ্যই পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশ করে আসন গ্রহণ করতে হবে।

“অনিবার্য কারণে কোনো পরীক্ষার্থী এর পর (পরীক্ষা শুরুর কমপক্ষে ৩০ মিনিট আগে) পরীক্ষা কেন্দ্রে আসলে রেজিস্ট্রারে নাম, ক্রমিক নং ও বিলম্বের কারণ উল্লেখ করতে হবে। বিলম্বে আসা পরীক্ষার্থীদের তালিকা প্রতিদিন কেন্দ্র সচিব সংশ্লিষ্ট বোর্ডকে অবহিত করবে।”

সব বিভাগীয় কমিশনার, বোর্ড চেয়ারম্যান ও জেলা প্রশাসক এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকসহ সংশ্লিষ্টদের পরিপত্রের অনুলিপি দেওয়া হয়েছে।

২০১৭ সালের ২৪ অক্টোবর ওই সময়কার শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ মোবাইল ফোনের মাধ্যমে প্রশ্ন ফাঁস ঠেকাতে ওই বছরের জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা থেকে পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট আগে পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা কেন্দ্রে ঢোকা বাধ্যতামূলক করার কথা জানান।

গত বছর এসএসসি পরীক্ষায় শিক্ষার্থীরা। ফাইল ছবি গত বছর এসএসসি পরীক্ষায় শিক্ষার্থীরা। ফাইল ছবি ওইদিন মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন বলেছিলেন, “এই সময়ের পর কোনো পরীক্ষার্থী এলে তাকে আর হলে ঢুকতে দেওয়া হবে না।”

এ বিষয়ে মন্ত্রী-সচিব বিভিন্ন সময় মৌখিক নির্দেশনা দিলেও লিখিত নির্দেশনা না থাকার কিছু কিছু কেন্দ্রে দেরিতে আসা পরীক্ষার্থীরা কেন্দ্রে প্রবেশে জটিলতার মুখে পড়েন।

অন্য পরিপত্রে বলা হয়েছে, কেন্দ্র সচিব ছাড়া কেউ মোবাইল ফোন বা অননুমোদিত ইলেকট্রনিক ডিভাইজ ব্যবহার করতে পারবেন না। কেন্দ্র সচিব ছবি তোলা ও ইন্টারনেট ব্যবহারের সুবিধাবিহীন একটি সাধারণ (ফিজার) ফোন ব্যবহার করতে পারবেন।

 

“অননুমোদিত ফোন বা ইলেকটনিক ডিভাইজ ব্যবহার করলে তাদের বিরুদ্ধে বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

প্রশ্নের সেট কোড পরীক্ষা শুরুর ২৫ মিনিট আগে জানানো হবে বলে জানিয়ে আরেকটি পরিপত্রে বলা হয়েছে, “পরীক্ষার সময় পরীক্ষার্থী এবং পরীক্ষা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি ছাড়া অন্য কেউ পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশ করতে পারবে না।”

আগামী ২ ফেব্রুয়ারি থেকে দেশের চার হাজার ৯৬৪টি কেন্দ্রে একযোগে শুরু হবে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা, এতে অংশ নেবেন ২৫ লাখ ৭৩ হাজার ৮৫১ জন শিক্ষার্থী।

এডুকেশন বাংলা