স্কুল-কলেজে শিক্ষক নিয়োগে বয়সসীমা ৩৫ বছর চূড়ান্ত

image_pdfimage_print

বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে(স্কুল ও কলেজ) শিক্ষক নিয়োগের বয়সসীমা ৩৫ বছর চূড়ান্ত করে এমপিও নীতিমালা ২০১৮ জারি করেছে সরকার। এছাড়া শিক্ষক-কর্মচারীদের বদলির সুযোগও রাখা হয়েছে।

গত ১২ জুন সই হওয়া নীতিমালাটি বৃহস্পতিবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীদের চাকরিতে প্রথম প্রবেশের সর্বোচ্চ বয়সসীমা ৩৫ বছর। তবে সমপদে বা উচ্চতর পদে নিয়োগের ক্ষেত্রে ইনডেক্সধারীদের জন্য বয়সসীমা শিথিলযোগ্য।

শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন-ভাতাদির সরকারি অংশ(এমপিও) ৬০ বছর বয়স পর্যন্ত দেয়া হবে জানিয়ে এতে বলা হয়েছে, বয়স ৬০ বছর পূর্ণ হওয়ার পর কোনও প্রতিষ্ঠানের প্রধান বা সহকারী প্রধান শিক্ষক বা কর্মচারীকে কোনও অবস্থাতেই পুনর্নিয়োগ বা চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ দেয়া যাবে না।

নতুন এই নীতিমালায় বলা হয়েছে, এমপিওভুক্ত শিক্ষকরা এক প্রতিষ্ঠান থেকে আরেক প্রতিষ্ঠানে বদলি হতে পারবেন। কীভাবে প্রতিষ্ঠান বদল করা যাবে নীতিমালায় তার বিস্তারিত ব্যাখ্যা রয়েছে।

আরও বলা হয়েছে, এমপিওভুক্তির তারিখ থেকে ১০ বছর সন্তোষজনক চাকরি পূর্ণ হলে পরবর্তী উচ্চতর বেতন গ্রেড পাবেন শিক্ষক-কর্মচারীরা। পরবর্তী ছয় বছর পর একইভাবে উচ্চতর গ্রেড পাবেন তারা। তবে চাকরি জীবনে দুটির বেশি উচ্চতর গ্রেড বা টাইম স্কেল পাবেন না।

২৭ পৃষ্ঠার এমপিও নীতিমালায় বিভিন্ন বিষয়ে বিস্তারিত ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণ ও বিভিন্ন নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

মাধ্যমিক উচ্চশিক্ষা বিভাগের যুগ্ম-সচিব(মাধ্যমিক) সালমা জাহান জানান, ঈদের পর এমপিওভুক্তির জন্য আবেদন গ্রহণ করা হবে। তারপর তা নীতিমালা অনুযায়ী কাম্য যোগ্যতা যাচাই-বাছাই করে নতুন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তি করা হবে।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Please wait...

Subscribe to our Site

Want to be notified when our article is published? Enter your email address and name below to be the first to know.